একজন সংগ্রামী নারীর স্বপ্ন পূরণের গল্প


দৈনিক প্রতিদিনের অপরাধ প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারী ১০, ২০১৯, ১:২২ অপরাহ্ন / ৪০৩
একজন সংগ্রামী নারীর স্বপ্ন পূরণের গল্প

কবি, সম্পাদক, সংগঠক ও প্রকাশক ফারহানা হৃদয়িনী যিনি কুষ্টিয়ার প্রথম নারী প্রকাশক যে অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০১৯ এ প্রাপ্তি প্রকাশনীর কর্ণধার হিসাবে অংশগ্রহণ করছে। একজন নারীর জন্য স্বাবলম্বী হবার প্রচেষ্টা করা এবং একটি প্রতিষ্ঠানকে দাড় করানো এবং সেটাকে সঠিকভাবে পরিচালনা করাটা খুবই কঠিন। তবু তিনি আপ্রাণ চেষ্টা করে চলেছেন আত্ম পরিচয় তৈরীর লড়াইতে জেতার জন্য। প্রাপ্তি প্রকাশনী তাঁর বেঁচে থাকার প্রেরণা একজন নারীর গৃহিনী হতে প্রকাশক পরিচয়ে বেঁচে থাকার আত্ম প্রত্যয়। সংসার বাচ্চা এদের সামলে তবু কঠিন যুদ্ধ তিনি করে চলেছেন, স্বাবলম্বী হবার জন্য, নিজের একটা প্রফেশনাল পরিচিতি তৈরী করার জন্য। সুহৃদদের বিশ্বাস নিয়ে এগিয়ে চলছেনন, কঠিন কাজ গুলো হাসিমুখে করে চলেছেন। একজন গৃহিনীর প্রকাশক হয়ে ওঠার স্বপ্নটা তার অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে পারছে সকলের দোয়া ও আন্তরিকতায়। নারী জীবনের সকল প্রতিকূলতাকে জয় করে তিনি এগিয়ে চলেছেন। কিছু ভালো কাজের প্রাপ্তি নিয়ে, আর এই প্রাপ্তির পথে সব সময় পাশে থেকে সহযোগীতা করে চলেছে তার ভাই সুলতান নীল। তিনি বলেন “নীলের সহযোগীতা ছাড়া হয়তো আমি কিছুই হতে পারতামনা, পেশা গৃহিনী বদলে নিজের প্রকাশক হিসাবে পেশা লেখার সুযোগটা হয়তো কখনোই হতো না। তাই চিরকৃতজ্ঞ সুলতান নীলের প্রতি”। ২০১৯ সালে অমর একুশে গ্রন্থমেলায় সম্মিলিত কাব্যগ্রন্থ হৃদয়ের ব্যাকরণ প্রকাশিত হচ্ছে।বইটি তে ৫ জন নবীন কবির সাথে কবি ফারহানা হৃদয়িনীর রচিত কবিতা থাকছে। তিনি ২০১৯ সালের বইমেলার জন্য দুটি বই সম্পাদনা করছেন একটি “হৃদয়ের ব্যাকরণ” ও অপরটি “প্রভাত ফেরী” তার প্রাপ্তি প্রকাশনী সর্বমোট ১০ টি নতুন বই নিয়ে তাদের ২০১৯ সালের অমর একুশে গ্রন্থমেলার যাত্রা শুরু করছে। বাংলা একাডেমীর লিটলম্যাগ চত্বরে প্রাপ্তির জন্য স্টল বরাদ্দ পেয়েছেন। ★তার রাত আর দিন কাটছে এখন কম্পিউটারের স্ক্রীনের সামনে, বই এডিট, এডিট আর এডিট নিয়ে তিনি ব্যাস্ত সময় পার করছেন। তার প্রকাশনী হতে প্রকাশিত ২০১৯ সালের বইমেলার বইগুলো হচ্ছে। ★রাজশাহী নিবাসী লেখিকা সোনালী মাহমুদের বই সোনামণিদের রঙীন স্বপ্ন। ★মুজিবনগর নিবাসী কবি ও লেখক এম ডি মনিরের গল্পের বই “শিকল বন্দী”। ★নওগাঁ নিবাসী মোঃ শরীফুল ইসলামের গল্পের বই “ভয়াল গ্রাস”। ★আমেরিকায় বসবাসরত লেখিকা ফারহানা হোসেনের বই “আমি তুমি ও সখার”। ★প্রাপ্তি ম্যাগাজিনের বইমেলা সংখ্যা ছাপা। ★”হৃদয়ের ব্যাকরণ” সম্মিলিত কাব্যগ্রন্থ। ★দুবাই প্রবাসী সাহাবান সরদারের বই “অপেক্ষার প্রহর ★ কুষ্টিয়া নিবাসী তরুণ কবি মোস্তাফিজ সুমন এর বই “মানবতার আর্তনাদ”। ★খন্দকার ফিরোজ আহমেদ এর কিশোর থ্রীলার স্ক্যানার। ★ “প্রভাতফেরী” সম্মিলিত কাব্যগ্রন্থ। কবি, সম্পাদক,প্রকাশক ও সংগঠক ফারহানা হৃদয়িনীর পরিচিতি: ১৯৮০ সালের ২৫ শে নভেম্বর কবি ফারহানা রহমান হৃদয়িনী জন্মগ্রহন করেন ,পিতা হাফিজুর রহমান তখন কুষ্টিয়া কোর্টে চাকুরী করতেন। মাতার নাম কানিজ সেতারা। তিনি বাবা মায়ের প্রথম সন্তান। তার দাদার নাম আজিজুর ররহমান বিশ্বাস, বাড়ি বিশ্বাস পাড়া, দুর্গাপুর,কুমার খালী। নানার নাম গোলাপ রহমান সরকার, বাড়ি কান্দাবাড়ী, কয়া, কুমারখালী। বাবার বাড়ি কোর্টপাড়া কুষ্টিয়া। মিশন প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাথমিক পড়ালেখা শেষে, কুষ্টিয়া সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হন ,তারপর কলকাকলী স্কুল হতে এস,এস,সি পরীক্ষায় প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হোন, অতপর কুষ্টিয়া ইসলামিয়া কলেজ থেকে এইচ, এস,সি পরীক্ষায় প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হোন। অতঃপর কুষ্টিয়া ইসলামিয়া কলেজ থেকে ২য় বিভাগে স্নাতক ডিগ্রী লাভ করেন। কুষ্টিয়া সরকারী কলেজে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে অধ্যায়ন করলেও ফাইনাল পরীক্ষা দেওয়া হয়নি। কুষ্টিয়া শহরেই বিবাহ অতঃপর বিবাহিত জীবনের শুরু। স্বামী দুর্জয় ইসলাম পেশায় ব্যবসায়ী। বর্তমানে তিনি তিনটি কণ্যা সন্তানের জননী। ফেসবুক সাহিত্য চর্চার মাধ্যমে কবিতা লেখার শুরু। এবং মনে সাহিত্য প্রেম নিয়ে বাংলা সাহিত্য বিকাশে এই শ্লোগানকে সামনে রেখে ডিজিটাল বাংলাদেশের ফেসবুক ভিত্তিক সংগঠন “বাংলাদেশ প্রাপ্তি সাহিত্য পরিষদ” গড়ে তুলেন । উনি গৃহিনী, সফল সংগঠক, সম্পাদক( প্রাপ্তি ম্যাগাজিন) ও প্রকাশক। ভ্রমণ, বইপড়া, নঁকশী-সেলাই এবং বাগান করা তার প্রিয় শখ গুলির মধ্যে অন্যতম। একুশে বইমেলা ২০১৬তে প্রকাশিত হয় প্রথম স্বরচিত কাব্যগ্রন্থ ” হৃদয়িনীর কাব্যকথা”। ২০১৭ সালে প্রাপ্তি প্রকাশনীর লাইসেন্স গ্রহনের মাধ্যমে প্রকাশক হিসাবে তার যাত্রা শুরু হয়। সে বছরই প্রথম তিনি কুষ্টিয়া থেকে ঘরে বসেই অনলাইনের মাধ্যমে বিভিন্ন লেখকের বইয়ের অর্ডার সংগ্রহ করেন। প্রাপ্তি প্রকাশনীর ব্যানারে মোট ১৭ টি গ্রন্থ অমর একুশে গ্রন্থমেলা- ২০১৭ ঢাকাতে প্রকাশিত হয়। ২০১৮ সালে প্রাপ্তি প্রকাশনী হতে দুটি বই প্রকাশিত হয়। এভাবেই শুরু একজন গৃহিনীর ডিজিটাল বাংলাদেশে স্বপ্ন পূরণের অগ্রযাত্রা।প্রাপ্তি ম্যাগাজিনটিও তিনি অনিয়মিত ভাবে প্রকাশ করে চলেছেন। সু দক্ষ সংগঠক হিসাবে বাংলাদেশ প্রাপ্ত