বিভিন্ন অজুহাতে কুমারখালী তাঁত বোর্ড থেকে ঋণ পাচ্ছে না তাঁতিরা


দৈনিক প্রতিদিনের অপরাধ প্রকাশের সময় : এপ্রিল ৬, ২০২২, ৮:২৪ অপরাহ্ন /
বিভিন্ন অজুহাতে কুমারখালী তাঁত বোর্ড থেকে ঋণ পাচ্ছে না তাঁতিরা

অপরাধ ডেস্কঃ কুষ্টিয়া কুমারখালীর তাঁত বোর্ডের ঋন বিতরণে বিলম্ব হওয়ায় ঈদকে সামনে রেখে চরম বিপাকে পড়েছে এই অঞ্চলের তাঁতী সম্প্রদায়ের লোকেরা।

প্রাচীন কাল থেকেই তাঁত শিল্পের জন্য বিখ্যাত কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলা। তাঁতী সম্প্রদায়ের জন্য চার জেলা মিলে তাঁত বোর্ডের একটিমাত্র অফিস কুমারখালীতে,যেখান থেকে জেলা গুলোর
ঋন কার্যক্রম পরিচালিত হয়।

করোনা কালীন সময়ে ক্ষতিগ্রস্ত তাঁত ব্যবসায়ীরা এবারে ঈদে লোকসান পুষিয়ে নিতে সরকারের স্বল্প সুদের তাঁত বোর্ডের ঋনের দিকে চেয়েছিল। কিন্তু নানা প্রশাসনিক জটিলতায় এখন পর্যন্ত ঋন পাইনি তাঁতিরা।

ঋন না পাওয়ায় ক্ষুদ্র তাঁতি গোষ্ঠীর কাপড় উৎপাদন কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে। সুতা,রং ও মজুরি খরচ বহন করতে না পারায় বন্ধ আছে কাপড়ের মিল গুলো। তাই আগামী সাত দিনের মধ্যে ক্ষুদ্র তাঁত ব্যবসায়ীরা যদি ঋন না পাই তাহলে বড় ধরনের ক্ষতির সমক্ষীণ হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

তাঁতি নেতা আব্দুল রাজ্জাক জানান, তাঁত বোর্ডের চেয়ারম্যান সাহেব আমাদের বলেছিল ৭ দিনের মধ্যে ঋণ পাবো কিন্তু মাসের পর মাস চলে যাচ্ছে আমরা ঋণ পাচ্ছি না। আমাদের ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধ হয়ে আছে অতি দ্রুত আমাদের ঋণের ব্যবস্থা করবে কুমারখালী তাঁত বোর্ড এই প্রত্যাশা করছি।

তাঁতি আব্দুল কাদের বলেন, দুই বছর ধরে ঘুরছি, কিন্তু আমারা উপজেলা তাঁত বোর্ড থেকে যে ঋণ পাওয়ার কথা ছিল সেটা এখনো পাচ্ছিনা। ঈদের আগে ঋণের ব্যবস্থা করবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এমনটা আশা করছি আমরা।

বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মাসুদ রানা জানান, আপনারা সবাই জানেন আমাদের এই অঞ্চলে যারা প্রকৃত তাঁতি আছে। তারা সবাই দুস্থ ও অভাবি আমরা চাই এই মানুষ গুলো ঈদের আগে ঋণের ব্যবস্থা করবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এমনটা আশা করি।

তবে এবিষয়ে কুমারখালী তাঁত বোর্ডের লিয়াজু অফিসার মঞ্জুরুল হক বলেন, ইতিমধ্যে উপজেলার ২৫ টি তাঁতি সমিতির মধ্যে ২ টি সমিতির ৪০ জন সদস্যদের মাঝে ৩৬ লক্ষ টাকার ঋন বিতরণ করা হয়েছে। অনেক সমিতির কমিটির মেয়াদ না থাকায় ও ঋন কার্যক্রম অনলাইন ভিত্তিক হওয়ায় বিলম্ব হয়েছে এছাড়াও রয়েছে জনবল সংকট।