স্বাধীনতার ৪৮ বছর পর এলাকাবাসীর উদ্যোগে রাস্তা সংস্কার


দৈনিক প্রতিদিনের অপরাধ প্রকাশের সময় : সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২১, ২:৫৯ অপরাহ্ন / ৪৯
স্বাধীনতার ৪৮ বছর পর এলাকাবাসীর উদ্যোগে রাস্তা সংস্কার

কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলার আমবাড়িয়া ইউনিয়নের গোসাইডাঙ্গী গ্রামের জন চলাচলের অযোগ্য রাস্তাটি ৪৮ বছর পর সংস্কার করেছেন এলাকাবাসী। এলাকাবাসীর উদ্যোগে শুক্রবার থেকে রোববার পর্যন্ত ৪ টি খন্ডে প্রায় ১ কিলোমিটার রাস্তার সংস্কারের জন্য স্থানীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রায় লক্ষাধিক টাকা ব্যয় করেছেন।

রোববার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ৩ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য কাঁচা রাস্তাটির বিভিন্ন জায়গায় বড় বড় গর্ত ও কাদা পানিতে ডোবা। ভ্যান সহ বিভিন্ন যানবাহন নিয়ে চলাচল করতে গিয়ে পথচারীরা হচ্ছেন ভোগান্তির শিকার।

এসময় গোসাইডাঙ্গী গ্রামের বাসিন্দা উত্তর জয়ন্তীহাজরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সোবাহান জানান, গোসাইডাঙ্গী গ্রামের এলজিইডির এই রাস্তাটি যুদ্ধের পর কখনও সংস্কার হয়নি। জনগুরুত্বপূর্ণ এমন রাস্তা বাংলাদেশের কোথাও কাঁচা আছে কিনা আমার জানা নেই। এই রাস্তা দিয়ে ভবানীগঞ্জ পুলিশ ক্যাম্প, স্কুল, কলেজ, বাজার ও শহরে হাজার হাজার লোক চলাচল করে। কিন্তু বছরের ৪/৫ মাস রাস্তাটি পানিতে ডুবে থাকে। প্রয়োজনের সময় বাইরে যেতে হলে মোটরসাইকেল রেখে লাফিয়ে লাফিয়ে চলতে হয়। বাচ্চারা স্কুলে যাবার সময় অনেকে কাদা পানিতে একাকার হয়ে বাড়িতে ফিরে যায়। এতোদিন পর অত্র অঞ্চলের বাসিন্দাদের অনুরোধে আমবাড়িয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আব্দুস সামাদের আর্থিক সহায়তায় রাস্তার বিভিন্ন খানাখন্দ বালির বস্তা দিয়ে সংস্কার করে জন চলাচলের উপযোগী করে তোলা হচ্ছে।

এলাকাবাসী হাছেন আলী প্রামানিক, আকামদ্দিন প্রামানিক ও মো. জাহিদ হোসেন জানান, এলাকার জনপ্রতিনিধিরা জনগুরুত্বপূর্ণ এই রাস্তাটি সংস্কারের জন্য কেউই এগিয়ে আসেননি। এলাকার ছেলে মেয়েদের ভালো জায়গা বিয়ে হয়না শুধুমাত্র যোগাযোগ ব্যবস্থা খারাপের কারনে। বর্ষা মৌসুমে তাদের ভোগান্তির শেষ থাকেনা।যুদ্ধের পর এই প্রথম এলাকার ছেলে আব্দুস সামাদ ব্যক্তিগত অর্থায়নে রাস্তাটি সংস্কারের কাজ করছেন। যেকারণে তারা প্রচন্ড খুশি।

এ বিষয়ে বর্তমান আমবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান আমিনুর রহমান খান বিষু বলেন, ২৫ বছর আগে তিনি একবার এই রাস্তাটি মাটি দিয়ে সংস্কার করেছিলেন। তারপর থেকে এ পর্যন্ত আর কেউ রাস্তাটি সংস্কারের জন্য এগিয়ে আসেনি। তিনি আরো জানান গত বছর গোসাইডাঙ্গীর আব্দুস সামাদ তাকে সাথে নিয়ে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলীর সাথে দেখা করলে তারা জানান টেকনিক্যাল ত্রুটির কারনে রাস্তাটির উন্নয়ন হচ্ছে না।