বাবা মেয়েকে মেরে ফেলবে, পালিয়ে আশ্রয়ে মেয়ে ভেড়ামারা থানায়। অবশেষে নিরাপদে বাড়ি পৌঁছালো তানিয়া


দৈনিক প্রতিদিনের অপরাধ প্রকাশের সময় : জুলাই ২৩, ২০২০, ৫:৪৯ অপরাহ্ন / ২৬৭
বাবা মেয়েকে মেরে ফেলবে, পালিয়ে আশ্রয়ে মেয়ে  ভেড়ামারা থানায়। অবশেষে নিরাপদে বাড়ি পৌঁছালো তানিয়া

জনি আহম্মেদ স্টাফ রিপোর্টারঃ- মেরে ফেলবে বাবা পালিয়ে আশ্রয় ভেড়ামারা থানায়। তানিয়া বয়স মাত্র ১৩/১৪ হবে। ঠাকুরগাঁও জেলা সদরে এক জরাজীর্ণ বস্তিতে তার বসবাস। ৮ বোন ও পিতা-মাতা নিয়ে তাদের ১০ জনের সংসার। জানালো দিনে ১ বেলাও খাবার জোটেনা ভালো ভাবে। তাতে কি? এইটুকু মেয়ে মেনে নেয়নি পিতার অবৈধ পেশাকে। তার পিতা মানিক সরদার একজন কুখ্যাত ডাকাত। পুলিশের চোখে ব্ল্যাকলিস্টেড। ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকে অত্যন্ত ধূর্ত প্রকৃতির। তখন তানিয়া পরিকল্পনা নেয় পিতাকে পুলিশের হাতে ধরিয়ে দেয়ার। সাহস নিয়ে চলে যায় স্থানীয় থানায়। কথা বলে সে থানার একজন এসআই এর সঙ্গে। সেই পুলিশ অফিসারের পরামর্শ মোতাবেক সময়োপযোগী তথ্য দিয়ে তানিয়া তার পিতাকে কয়েকদিনের মধ্যে গ্রেফতার করাতে সক্ষম হয়। বেশকিছু দিন অতিবাহিত হয়ে যায়। এর মধ্যে তানিয়া কে বিভিন্ন মাধ্যমে শুনতে হয় তার পিতা জেল থেকে ছাড়া পেলেই তাকে প্রানে মেরে ফেলবে। হয়তো তার পিতা বুঝতে পেরেছে তার মেয়েই তাকে ধরিয়ে দিয়েছে। হঠাৎ পিতার জেল থেকে জামিনের কথা শুনে বাস ও ট্রেনযোগে অজানা উদ্দেশ্য বেড়িয়ে পরলে এসে পৌঁছায় ভেড়ামারায়। লোকমুখে থানার কথা জিজ্ঞেস করে চলে আসে গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় ভেড়ামারা থানায়। সে বলতে থাকে ওসি আংকেলের সাথে কথা বলবো। তানিয়া বিস্তারিত ঘটনা জানায় ভেড়ামারা থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শাহজালাল কে। ওসির নির্দেশে ভেড়ামারা থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই প্রকাশ রায় ঠাকুরগাঁও সংশ্লিষ্ট থানায় কথা বলে বিষয়টি নিশ্চিত হন। এবং জানতে পারেন তানিয়ার পিতা এখনও জেল থেকে জামিন না পাওয়ার। ভেড়ামারা থানার অফিসার ইনচার্জ এর যথাযথ পদক্ষেপের মাধ্যমে তার পরিবার ও উক্ত থানায় কথা বলে তখনই তানিয়ার বাড়ি যাওয়ার সুব্যবস্থা করেন। সেইসাথে সেখানকার থানাকেও অনুরোধ করেন তানিয়ার নিরাপত্ত্বার বিষয়টি। আজ সকালে নিরাপদে বাড়ি পৌঁছেছে তানিয়া জানিয়েছে তার নানা তালাশ হোসেন। অভিনন্দন ওসি ভেড়ামারা, বেড়ে উঠুক প্রতিটি ঘরে তানিয়ার মতো মেয়ে।