রাতে আঁধারে বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন রাঙামাটি জেলা প্রশাসক


দৈনিক প্রতিদিনের অপরাধ প্রকাশের সময় : এপ্রিল ২, ২০২০, ৬:৫১ পূর্বাহ্ন / ২০৮
রাতে আঁধারে বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন  রাঙামাটি জেলা প্রশাসক

ঘরে থাকা কর্মহীন দরিদ্র জনসাধারণের জন্য প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ঘোষিত খাদ্য সহায়তা রাতের আঁধারে বাড়ি বাড়ি গিয়ে নিজ হাতে পৌছে দিলেন রাঙামাটির জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ।

সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে এবং প্রত্যেক কর্মহীন মানুষের খাদ্য সহায়তা প্রাপ্তি নিশ্চিত করনে জেলা প্রশাসক এই উদ্যোগ নিয়েছেন জেলা প্রশাসক।

রাতের আঁধারে দুর্গম পাহাড়ি পথে ত্রাণ হাতে ছুটছেন  ডিসি একেএম মামুনুর রশিদ।
করোনাভাইরাসের আতঙ্ক পেছনে ফেলে রাত-দিন জনগণের দ্বারে দ্বারে ঘুরে ঘুরে শুধু খবর নিতেই নয়, উঁচুনীচু পাহাড়ি পথ পাড়ি দিয়ে মানুষের দুয়ারে দুয়ারে প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী নিয়ে উপস্থিত জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ। রাতের বেলায় পাহাড়ি এলাকায় গিয়ে দরজায় খটখটের আওয়াজ শুনে মানুষ দরজা খুলে ডিসিকে দেখে যেমনি আপ্লুত হচ্ছেন, পক্ষান্তরে তেমনি সাহসও ফিরে পাচ্ছেন ঘরে থাকার।

গত কয়েকদিনের ধারাবাহিকতায় বুধবার সারাদিনের পর রাত ৮টা পর্যন্ত রাঙামাটি শহরের ভেদভেদী, রাঙ্গাপানি, আসামবস্তির একাংশসহ রিজার্ভ বাজারের এসপি বাংলো এলাকায় ঘরে ঘরে গিয়ে কর্মহীন শ্রমিকদের হাতে ১০ কেজি করে চাউলসহ অন্যান্য খাদ্য সহায়তার প্যাকেট তুলে দিয়ে জেলা প্রশাসক বাসিন্দাদের বলেন, আপাতত এগুলো দিয়ে সংসার চালান, বাইরে বের হবেন না। আপনাদের প্রয়োজনে আমরা আরো দিবো। আপনারা নিরাপদে বাসায় থাকেন আমরা আপনাদের সেবায় রাস্তায় আছি। আপনাদের পাশে আছি।

এ সময় জেলা প্রশাসনের নেজারত ডেপুটি কালেক্টর উত্তম কুমার দাশ, নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট পল্লব হোম দাশ, নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ ইসলাম উদ্দিনসহ জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা কর্মচারী এবং গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে গিয়ে পাহাড়ের খেটে খাওয়া মানুষজন করোনা ভাইরাসের আক্রমন থেকে রক্ষায় কাজ-কর্ম ছেড়ে নিজেদের বাসায় অবস্থান করছে। এমতাবস্থায় জেলার প্রায় ৩০ হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্য সংকট মোকাবেলা এসব পরিবারের মাঝে পর্যায়ক্রমে খাদ্য সহায়তা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাঙামাটির জেলা প্রশাসন কর্তৃপক্ষ।

তারই ধারাবাহিকতায় ঘরে ঘরে খাদ্যশস্য পৌছে দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ। এদিকে রাতের অন্ধকারে নিজ ঘরে ডিসির আগমন এবং খাদ্য সহায়তা প্রাপ্তিতে বেশ উৎফুল্ল দেখা গেছে পাহাড়ি-বাঙ্গালী বাসিন্দাদের। এসময় অনেককেই বলতে শোনা গেছে, করোনার বিরুদ্ধে জাতি জয়ী হবে কিনা তা হয়তো উপরওয়ালার হাতে। কিন্তু রাঙামাটিবাসীর মন জয় করে নিয়েছেন অত্র জেলার জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ।