রাঙামাটিতে পৃথক কর্মসূচীতে শান্তিচুক্তির ২২ তম বর্ষপূতি পালন


দৈনিক প্রতিদিনের অপরাধ প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ২, ২০১৯, ২:৫৬ অপরাহ্ন / ২১৩
রাঙামাটিতে পৃথক কর্মসূচীতে শান্তিচুক্তির ২২ তম বর্ষপূতি পালন
আজ ২ ডিসেম্বর নানা কর্মসূচীর মধ্যদিয়ে রাঙ্গামাটিতে বর্নাঢ্য আয়োজনে পাবর্ত্য চট্টগ্রাম চুক্তির ২২ তম বর্ষপূতি পালিত হয়েছে।
এই উপলক্ষে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ ও পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি আলাদা ভাবে র্যালী ও আলোচনা সভার আয়োজন করে। রাঙ্গামাটি ক্ষুদ্র নৃ- গোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইনিস্টিটিউট প্রাঙ্গনে পার্বত্য শান্তিচুক্তির ২২ বছর পূর্তি উপলক্ষে রাঙ্গামাটি কলেজ থেকে এক বর্ণাঢ্য র্যালী বের হয় এবং পরে ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, রাঙ্গামাটি সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার।রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমার সভাপতিত্বে রাঙামাটি রিজিয়ন কমান্ডার বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মোঃ মাইনুর রহমান,রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক একে এম মামুনুর রশিদ, পুলিশ সুপার আলমগীর কবীর, আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য হাজ্বী কামাল সহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।
অন্যদিকে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি রাঙামাটি জিমনেশিয়াম প্রাঙ্গনে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, রাঙ্গামাটি সাবেক সংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার, এম এন লারমা মেমোরিয়াল ট্রান্সের সভাপতি বিজয় কেতন চাকমা সহ সভায় জনসংহতি সমিতির অন্যান্যরা বক্তব্য রাখেন।
রাঙ্গামাটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইনিষ্টিটিউট প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন,আওয়ামী লীগ সরকার এই পার্বত্য শান্তি চুক্তি করেছে এ সরকার ও তার অধিকাংশ বাস্তবায়ন করেছে। সরকার ভুমি কমিশন আইন পাস করেছে। শান্তিচুক্তির বাকি অংশগুলোও দ্রুত বাস্তবায়ন হবে। তবে এর জন্য সকলের সহযোগীতা কামনা করেন বক্তারা।
অন্যদিকে রাঙামাটি জিমনেশিয়াম প্রাঙ্গনে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, সরকারের সদিচ্ছা না থাকায় গত ২২ বছরেও চুক্তি পুরোপুরি বাস্তবায়ন হতে পারেনি যার ভবিষ্যৎ এখন অনিশ্চিত। পার্বত্য চুক্তির পূর্ণবাস্তবায়ন না হওয়ায় পাহাড়ে অশান্তি সৃষ্টি হয়েছে।
এছাড়া বিকালে রাঙামাটি চিংহ্লা মং মারী স্টেডিয়ামে রাঙামাটি জেলা পরিষদ ও রাঙামাটি রিজিয়নের উদ্যোগে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।