রাঙ্গামাটি রাজবন বিহারে সংরক্ষন ও খাদ্যভাবে হাজারো বানর


দৈনিক প্রতিদিনের অপরাধ প্রকাশের সময় : নভেম্বর ২৯, ২০১৯, ২:৪৪ অপরাহ্ন / ৩৭৭
রাঙ্গামাটি রাজবন বিহারে সংরক্ষন ও খাদ্যভাবে হাজারো বানর
রাঙ্গামাটিতে বৌদ্ধ ধর্মালবম্বীদের তীর্থ স্থান রাজবন বিহার। এই তীর্থ স্থান রাজ বন বিহারে প্রতিনিয়ত পর্যটক এসে ভিড় জমায়। আর এই রাজ বন বিহারের এলাকায় সংরক্ষন ও খাদ্যভাবে রয়েছে হাজারো বানর। তাদের সংরক্ষনের জন্য নেই কোন রকম উদ্যোগ। খাদ্যভাবে থাকা বানরগুলো প্রায় সময় রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে বেড়ায় এবং তাদের খাদ্য চাহিদা পূরনের জন্য এসব বানরেরা রাজ বনবিহারে আসা যাওয়া করা পর্যটকদের কাছ থেকে অনেক সময় খাবার কেড়ে নেয়।
এদিকে রাজবন বিহার কর্তৃপক্ষে বলছেন,রাঙ্গামাটি রাজ বন বিহারে অবস্থান রত হাজার হাজার বানরদের সংরক্ষন ও তাদের খাদ্য চাহিদা পূরনে পদক্ষেপ নিতে বন বিভাগকে বলা হলেও এখন ও বন বিভাগ কোন পদক্ষেপ গ্রহন করেনি। তাই জীব বৈচিত্র্য রক্ষাসহ পরিবেশ সুরক্ষায় এসব হাজারো বানরের সংরক্ষনের উদ্যােগ নিতে সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন সবাই।
 রাজবন বিহারের এক ধর্মীয় গুরু বলেন, বৌদ্ধ ধর্মালম্বীদের প্রধান ধমীয় গুরু সাধানানন্দ মহাস্থবির বনভান্তের জীবদশায় এখানে এসব বানরের আগমন শুরু হয়। এসব বানরের সংরক্ষনে ও খাদ্য সমস্যা সমাধানের উদ্যােগ নেওয়ার কথা বলেন তিনি।
আর এই বিষয়ে রাজবন বিহার পরিচালনা কমিটির সভাপতি বলেন, বিহার এলাকায় থাকা বানরের সংরক্ষনের কথা বার বার বন বিভাগকে জানানো হলেও তারা বলেছেন রাঙ্গামাটিতে নাকি এসব বানর সংরক্ষনের সেরকম তেমন এক্সপার্ট নেই। এসব বানর সংরক্ষনে উদ্যােগ গ্রহন করার চিন্তা ভাবনা চলছে বলে জানান তিনি।
এ বিষয়ে রাঙামাটি বন বিভাগের বন সংরক্ষক মোঃ ছানাউল্লা পাটওয়ারী বলেন, বর্তমানে বানরগুলো যে পরিবেশে আছে, সেখানে ভালো আছে নিরাপদে আছে। তবে এসব বানরগুলোর সংরক্ষনের বিষয়ে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে উদ্যােগ নেয়া হবে।
তবে পর্যটন শহর রাঙামাটি ঐতিহ্যবাহী এলাকা রাজ বন বিহার সংলগ্ন এলাকায় থাকা এসব হাজার হাজার বানরের সংরক্ষন করা গেলে জীব-বৈচিত্র্য রক্ষার পাশাপাশি পর্যটকদের কাছে এ স্থানটি আরো দর্শনীয় হয়ে ওঠবে বলে আশাবাদ সকলের
তাই এসব বানরগুলো স্থায়ী সমস্যা সমাধানে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে সরকারে হস্তপেক্ষ কমনা করেছেন সচেতন মহল।