২০২০ সালের ঝুঁকিপূর্ণ দেশের তালিকা প্রকাশ


দৈনিক প্রতিদিনের অপরাধ প্রকাশের সময় : নভেম্বর ১৮, ২০১৯, ৩:২৮ অপরাহ্ন / ১৬৮
২০২০ সালের ঝুঁকিপূর্ণ দেশের তালিকা প্রকাশ

২০২০ সালে বিশ্বর সবচেয়ে বিপজ্জনক দেশ হলো লিবিয়া ও সোমালিয়া। ব্যবসায়ী ও ভ্রমণকারীদের সতর্ক করার জন্য নতুন এক মানচিত্র প্রণয়ন করা হচ্ছে যাতে বিপজ্জনক গন্তব্যগুলোকে চিহ্নিত করা হয়েছে।

তবে উত্তর ইউরোপ ও উত্তর আটলান্টিকের এলাকাগুলো নিরাপদ বলে উল্লেখ করা হয় জরিপের ফলাফলে।

বিভিন্ন দেশের ব্যবসায়ী ও ভ্রমণকারী যে সকল দেশে ভ্রমণ করতে গেলে নিরাপদ সড়কের সমস্যা, নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্য সেবা সংক্রান্ত জটিলতার মুখোমুখি হয়েছেন সে সকল দেশের উপর চালিত এক জরিপের ফল হিসেবে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

জরিপে দেখা গেছে, ভ্রমণের জন্য সবচেয়ে নিরপাদ জায়গা হলো নর্ডিক এলাকাগুলো। উল্লেখ্য উত্তর আটলান্টিক ও উত্তর ইউরোপের দেশগুলোকে নর্ডিক বলে বিবেচনা করা হয়।

আন্তর্জাতিক চিকিৎসা ও সুরক্ষা বিশেষজ্ঞ সংস্থা এসওএস এই মানচিত্রটি প্রকাশ করছে। তিনটি বিভাগে ভাগ করে এ জরিপ চালানো হয়েছে। সবগুলো বিভাগেই আফগানিস্তান ও ভেনিজুয়েলার পাশপাশি লিবিয়া ও সোমালিয়া তালিকার নিচে রয়েছে। নিচে থাকার অর্থ হলো এগুলো অধিকতর বিপজ্জনক দেশ।

অপরদিকে নরওয়ে, ফিনল্যান্ড, আইসল্যান্ড চিকিৎসা সমস্যা, সুরক্ষা এবং নিরাপদ সড়ক এই তিন বিভাগেই কম ঝুঁকিতে রয়েছে। পাশাপাশি থাকায় সুইডেন ও গ্রিনল্যান্ডকেও কম ঝুঁকির দেশ হিসেবে বিবেচনা কর হয়েছে।

যখন স্বাস্থ্যের কথা আসে, চিকিৎসা সম্পর্কিত সমস্যা বা রোগের সংক্রমণের ঝুঁকি আছে এমন দেশগুলোর মধ্যে আফ্রিকান নাইজেরিয়া, গিনি, সিয়েরা লিওন, লাইবেরিয়া, দক্ষিণ সুদান, ইরিত্রিয়া এবং মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্রের দেশগুলো উল্লেখযোগ্য।

ইয়েমেনকে সিরিয়া ও উত্তর কোরিয়ার পাশাপাশি স্বাস্থ্যঝুঁকিপূর্ণ দেশের তালিকায় বিবেচনা করা হয়েছিল। অপর দিকে র‌্যাঙ্কিংয়ের বিপরীতে কম স্বাস্থ্যঝুঁকিপূর্ণ এলাকার তালিকায় ইউরোপ, কানাডা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া এবং জাপানের নাম রয়েছে।

ভ্রমণকারীদের সুরক্ষার জন্য, গবেষকরা রাজনৈতিক সহিংসতা (সন্ত্রাস ও বিদ্রোহসহ), সামাজিক অস্থিরতা, হিংসাত্মক এবং ক্ষুদ্র অপরাধমূলক হুমকিও মূল্যায়ন করেছেন।

ভ্রমণকারীদের সুরক্ষার জন্য চরম ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে আফগানিস্তান, সিরিয়া, ইয়েমেন, ইরাক, সোমালিয়া, লিবিয়া এবং নাইজেরিয়ার কিছু অংশ।

নিরাপদ সড়কের ক্ষেত্রে, আফ্রিকার দেশগুলি ছাড়াও যে দেশগুলো বেশি ঝুঁকিপূর্ণ রয়েছে সেগুলোর মধ্যে ভেনেজুয়েলা, বেলিজ, ডোমিনিকান প্রজাতন্ত্র, সৌদি আরব, থাইল্যান্ড এবং ভিয়েতনাম অন্যতম।

আন্তর্জাতিক মার্কেট রিসার্চ কোম্পানি ইসপোস মোরি সম্প্রতি ‘বিজনেস রেসিলেন্স ট্রেন্ডস ওয়াচ ২০২০’ শীর্ষক একটি রিপোর্ট প্রকাশ করে যাতে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে ব্যাবসায়ীদের ভ্রমণের ক্ষেত্রে আগামী বছরকে ঝুঁকিপূর্ণ বলে উল্লেখ করা হয়।

২০১৯ সালের ঝুঁকির উপর ভিত্তি করে যা অনুমান করা হয়েছে তার চেয়ে ঝুঁকি ৫১ শতাংশ কমেছে বলে পর্যবেক্ষকরা বলছেন।

জরিপ পরিচালনাকরী সংস্থা এসওএস এর পরিচালক ডগ কোয়ারি বলেন, উদীয়মান ঝুঁকির হুমকি ব্যবসায়ী ও তাদের ব্যবসায়ে প্রভাব ফেলতে পারে, সে কারণে তাদের সচেতনতা আমাদের উৎসাহিত করে।

২০২২ সালের মধ্যে বৈশ্বিক উৎপাদন খাতে ১.৭ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগের সম্ভাবনা রয়েছে। ব্যবসায়ীরা সমূহ বিপদ সম্পর্কে আগে থেকে জেনেছে বলে সতর্ক। তবুও যতটা নিরাপত্তা বজায় রেখে সম্ভব তারা এগিয়ে যাবে।

কোয়ারি বলেন, ব্যবসায়ী ও সংস্থাগুলো যাতে সবকিছু মাথায় রেখে পরিকল্পনা করতে পারেন সে কারণে যতটা সহযোগিতামূলক তথ্য উপস্থাপন করা সম্ভব, আমরা তা করেছি। এখন ব্যবসায়ীরা যা করবেন সবকিছু বিবেচনায় রেখেই জনবল ও বিনিয়োগ কাজে লাগাবেন।