নলছিটিতে ১১ হাজার ভোল্টের বৈদ্যুতিক লাইনের উপর গাছ ফেলে খাম্বা ভাঙার অভিযোগ পাওয়া গেছে


দৈনিক প্রতিদিনের অপরাধ প্রকাশের সময় : নভেম্বর ১৮, ২০১৯, ১২:৩৫ অপরাহ্ন / ২১৮
নলছিটিতে   ১১ হাজার ভোল্টের বৈদ্যুতিক লাইনের উপর গাছ ফেলে  খাম্বা ভাঙার অভিযোগ পাওয়া গেছে
ঝালকাঠির নলছিটিতে মো. বাবুল বিশ্বাস নামে এক গাছ ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে
ঝালকাঠির নলছিটিতে ১১ হাজার ভোল্টের বৈদ্যুতিক লাইনের উপর গাছ ফেলে বৈদ্যুতিক খাম্বা ভাঙার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
১৩/১১/২০১৯ইং তারিখ বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৫টার দিকে উপজেলার পূর্বনান্দিকাঠী গাজী বাড়ির সামনে এ ঘটনা ঘটলে পৌরসভার বিভিন্ন এলাকায় প্রায় আড়াই ঘণ্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকে।
রাত ৮টার দিকে কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হলেও তিন গ্রামের মানুষ বিদ্যুতহীন হয়ে পড়েছেন।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সম্প্রতি উপজেলার নান্দিকাঠি গ্রামের বাসিন্দা মো. মামুন মাস্টার নলছিটি-হদুয়া সড়ক সংলগ্ন নরসিংহপুর এলাকায় বেশ কয়েকটি গাছ বিক্রি করেন। গাছগুলো ক্রয় করেন স্থানীয় গাছ ব্যবসায়ী মো. বাবুল বিশ্বাস। বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজনকে না জানিয়ে তিনি গাছগুলো কাটতে গেলে বুধবার সন্ধ্যায় একটি বড় আকারের চাম্বল গাছ বৈদ্যুতিক তারের উপর পড়লে একটি খাম্বা ভেঙে যায়। এসময় ১১ হাজার ভোল্টের বৈদ্যুতিক লাইনসহ সংযোগ লাইনগুলো ছিঁড়ে যায়।  এতে দুর্ভোগে পড়েন স্থানীয়রা। ঘটনার আড়াই ঘন্টা পর কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হলেও সারারাত অন্ধকারে ছিল উপজেলার নাংগুলী, বৈচুন্ডী ও মালিপুর গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ।
এ ব্যাপারে ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (ওজোপাডিকো) নলছিটি উপজেলার আবাসিক প্রকৌশলী মো. ফিরোজ সন্যামত বলেন, বিষয়টি জানার পর তাৎক্ষণিক বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজন ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়। দ্রুত সময়ের মধ্যে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করার জন্য কর্মচারীরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।
ওজোপাডিকোর নির্বাহী প্রকৌশলী (ঝালকাঠি) আব্দুর রহিম জানান, সড়কের পাশে গাছ কাটার বিষয়টি বিদ্যুৎ বিভাগকে আগে থেকে অবহিত করা হলে এমন ঘটনা ঘটতো না।
বৈদ্যুতিক খাম্বা ভেঙে রাষ্ট্রীয় সম্পদের ক্ষতি ও জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করা শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে।