সাংবাদিক কে এম সিদ্দিকুর রহমান কোনো চাঁদাবাজ নয়


দৈনিক প্রতিদিনের অপরাধ প্রকাশের সময় : অগাস্ট ২৪, ২০১৯, ১২:৫৯ অপরাহ্ন / ৪১৩
সাংবাদিক কে এম সিদ্দিকুর রহমান কোনো চাঁদাবাজ নয়

সাংবাদিক, কে এম সিদ্দিকুর, রহমান নিয়ে যে সব তথ্য যারা দিচ্ছেন সব ভুল তথ্য মিথ্যা রিপোট করছেন ৫ সাংবাদিক নিয়ে যারা সরেযন্ত্র করছে তোমরা ভুল ও মিথ্যা তথ্য প্রকাশ করছে।,আমি জানি,আমার জানা মতে,,জন্ম কুমারখালী,উদয়বিষ্ণপু­র,, ৪০ বছর সত্যর সন্ধানে,মিথ্যা বলে না,,দর্শন,,তাকে নিয়ে যারা সরেযন্ত্র করছে,তারা ভুল করছে,আমি তাদের উদ্দ্যেশ বলছি,কারণ সে একজন,বাংলাদেশের, এক জন সুবর্ণ নাগরিক জীবনটার ন্যায়ের পথে,দর্শন, আল্লাহর পথের পাগলা বাবার দরবারের খাদেম, জানা মতে,সত্য কখনও মিথ্যা দিয়ে ঢাকা যায় কি? তার কেন সংসার নাই, ছেলে মেয়ে না পিতার পাওয়া জায়গা টুকু পাওয়া সে জমি টুকু দান করে দিয়েছেন, তাকে হয় তো চিনতে পারেন? পরিচয় দিই না কখনও ধর্ম দর্শম,যারা মিথ্যা সরেযন্ত্র করছে না দেখে? বর্তমান দর্শনের জামানা,ধর্ম দর্শন,আমি শেষ বারের মত, বলছি মানহানী কর,বিষয় হয়েছে, মিথ্যা,বলবেন না মিথ্যা তথ্য দিয়ে তার নিয়ে লিখবেন না, কর্মময় জীবন অতি বাহিত কর্মের মধ্যে তার ইসলামী দর্শন তার লেখা লেখির মধ্যে, সাংবাদিকতা শুরু হয়,১৯৮৪ সালে দৈনিক আজকের দর্পন সাভার ঢাকা থেকে প্রকাশিত পত্রিকায় লেখা লেখির,মধ্যে দিয়ে, পি,আই বি, এস এ কাদের কিবরিয়ার হাত ধরে আসেন এই জগতে,১৯৮৬ সালে কুমারখালী প্রেস ক্লাবের সাধারণ সদস্য পদ লাভ করে।১৯৯৯ সালে প্রতিষ্ঠিত সভাপতি কুমারখালী রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতির দায়িত্ব নেম।১৯৯৬ সাল কৃষি বিপ্লব পত্রিকার কুষ্টিয়া জেলার ব্যুরো -চীফ এর দায়িত্ব পালন করেন।কুষ্টিয়া থেকে প্রকাশিত’ দৈনিক স্বর্ণ যুগ ‘পত্রিকার দায়িত্ব পালন করেন দু’বছর। ২০০২ সালে জাতীয় সাংবাদিক সংস্হা কুমারখালী থানা শাখার,সভাপতিদায়িত্ব পান।পরবর্তীতে “অপরাধ চক্র পত্রিকার কুষ্টিয়া জেলার দায়িত্ব পালন করেন বর্তমান কুমারখালী রিপোর্টার্স ইউনিটির এর সভাপতি ও জাতীয় সাংবাদিক সংস্হার কুমারখালী থানা শাখার,আহবায়ক ও জাতীয় দৈনিক বিসনেস ফাইল দক্ষিণাঞ্চল ব্যুরো প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন,।পাগলা বাবার দরবারের খলিফা,কে এম সিদ্দিকুর রহমান, জার্নালিজম ট্টেনিং ইনস্টিটিউট,ওরিয়েন্টে­শন,সনদপত্র লাভ করেন ২০০১ সালে।২০০৩ সালে জাতীয় সাংবাদিক সংস্হার সনদপত্র লাভ করেন, জাতীয় সাংবাদিক সংস্হা ২০১৩ সালে অভিজ্ঞানপত্র লাভ করে।তিনি ২০০৯ সালে বাউল সম্রাট লালনশাহ পদক লাভ করেন ২০১১ সালে সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদানের জন্য অপরাধ চক্র পদক লাভ করেন। মুক্তিযোদ্ধা সাংস্কৃতিক সংসদ থেকে মানবসেবার উপর একটি সম্মাননা পান তিনি কুমারখালীর এক জন প্রবীন সাংবাদিক এবং সংগঠন। জাতি ধর্ম নির্বিশেষে তিনি সবাইকে সত্যে পথে চলার অনুরোধ জানায়, তিনি কখনও অবৈধ চাঁদা বাজ নয়।সে কখনও চাঁদাবাজী করি নাই আমি তার জন্য প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

এল এল বি, নাসনিন সুলতানা।।