ঢাকা ০৮:০২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৯ নভেম্বর ২০২৩, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শ্বশুরবাড়িতে ঈদের সালামি অনেক বেশি পেয়েছি: সাবিলা নূর

  • Reporter Name
  • প্রকাশের সময় : ০২:৩৬:০৩ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৫ জুন ২০২০
  • 43

বিয়ের পর এবারই প্রথম শ্বশুরবাড়িতে ঈদ পালন করলেন টিভি পর্দার জনপ্রিয় অভিনেত্রী সাবিলা নূর। এসএ টেলিভিশনে ব্রডকাস্ট ইঞ্জিনিয়ার নেহাল সুনন্দ তাহেরকে ভালোবেসে গেল বছরের শেষের দিকে বিয়ে করেন এ অভিনেত্রী।

 

দেশের করোনা পরিস্থিতিতে অনেকদিন ধরেই শ্বশুরবাড়িতে ঘরবন্দী সময় কাটাচ্ছেন তিনি। ঘরে থাকলেও সেখানে বেশ ভালো সময় কাটাচ্ছেন সাবিলা। পরিবারের সবার সঙ্গে এক আনন্দঘন মূহুর্ত পার করছেন।

নজরকাড়া অভিনয় দিয়ে লাখো দর্শকের মনে জায়গা নেয়া এ অভিনেত্রীর জন্মদিন আজ ২৭ মে, বুধবার। সেদিক থেকে এবারের জন্মদিনটাও তার জন্য স্পেশাল। ঈদুল ফিতরের সঙ্গে জন্মদিনটাও শ্বশুরবাড়িতেই কাটাচ্ছেন তিনি।

জন্মদিন পালন প্রসঙ্গে সাবিলা নূর বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, ‘বিয়ের পর শ্বশুরবাড়িতে এটা আমার প্রথম ঈদ ও প্রথম জন্মদিন। খুব ভালো ঈদ কাটিয়েছি। আজকে জন্মদিন কাটাচ্ছি। অনেক ভালো লাগছে। তবে কারোনার কারণে খুব একটা আনন্দ করা হয়নি ঈদে। সামনে তো আরো ঈদ আছে। ইনশাল্লাহ আগামীর ঈদগুলো আরও ভালো করে সেলিব্রেট করতে পারব। করোনার কারণে তো কোথাও বেড়াতে যেতে পারেনি।’

বিয়ের পর এটাই প্রথম ঈদ। নতুন পরিবারের সঙ্গে সময়টা কিভাবে কাটালেন, এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘আমি অনেকটা লাকি কারণ বাবার বাড়ি ও শ্বশুরবাড়ির ঈদ আমি আলাদা ভাবে ফিল করিনি। মনে হচ্ছে নিজের বাড়িতেই ঈদ করছি। আরেকটা ভালো দিক হচ্ছে ঈদের সালামি অনেক বেশি পেয়েছি এবার।’

 

জন্মদিনের উপহার হিসেবে কী পেয়েছেন এবার। সাবিলা বললেন, ‘জন্মদিনের সারপ্রাইজ দেওয়ার পরিকল্পনা করছে আমার বর। সারপ্রাইজ টা যে কি সেটা এখনও জানি না। তবে বাসাতেই থাকবো। বাসা থেকে বাইরে কোথাও যাব না।’

জন্মদিন কোনো মজার স্মৃতি মনে পড়ে? স্মৃতি হাতড়ে সাবিলা নূর বললেন, ‘আমি আসলে জন্মদিনটাকে খুব স্পেশালভাবে দেখতাম ছোটবেলা থেকেই। আব্বু আম্মু সবাই আমাকে নিয়ে সেলিব্রেট করত দিনটা। আমিও খুবই উপভোগ করতাম। জন্মদিনের পার্টি হত। জন্মদিনে আম্মু একবার বার-বি-কিউ কেক বানিয়ে দিয়েছিল। আব্বু আম্মু ভাই বোন সবাই মিলে অনেক মজা করতাম এই দিনে।

গতবার নেহাল আমার জন্মদিনে দারুন একটা সারপ্রাইজ দিয়েছিল। প্রত্যেকবারই আমার জন্মদিনটা অনেক ভালো যায়। সে দিক থেকে আমি অনেক লাকি।’

এখন পর্যন্ত জন্মদিনে পাওয়া সেরা গিফট কি? সাবিলা নূর বললেন, ‘এখন পর্যন্ত আমার জন্মদিনের সেরা গিফট হচ্ছে- গত বছর জন্মদিনে আমার স্কুল ফ্রেন্ডদের সঙ্গে দেখা হওয়া। সবাইকে নেহাল একত্রে করে একটা পার্টি অ্যারেঞ্জ করেছিল। এছাড়া যেইবার জন্মদিনের সময় আমেরিকায় ছিলাম, মনে হচ্ছিলো- চেনা পরিচিত মানুষ কম আছে এখানে। এবার হয়তো বড় পরিসরে জন্মদিনের আয়োজন করা হবে না। সেইবার আমার বোন তার বন্ধু-বান্ধবকে ডেকে বড় একটা জন্মদিনের আয়োজন করেছিল। প্রত্যেক জন্মদিনে এমন স্মরণীয় কিছু না কিছু আছে।’

সাবিলা নূর জানালেন, এবার ঈদে ‘ব্যাচেলার কোয়ারেন্টাইন’ নামে তার অভিনীত একটি নাটক প্রচার হয়েছে। বাসায় বসে শুটিং করেছিলেন নাটকটির। এছাড়া পুরনো কিছু নাটক প্রচার হয়েছে তার। লকডাউন শুরু হওয়ার আগে পরীক্ষা নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। এরপর শুরু হলো লকডাউন।

তিনি আরও বলেন, ‘ করোনার কারনে কি কি নাটক যাচ্ছে খুব একটা খবরও রাখিনি। এখন সুস্থ থাকা ও বেঁচে থাকাটা জরুরী। এই সমস্যা আমরা কবে কাটিয়ে উঠতে পারব জানি না।’

প্রসঙ্গত, তিন বছরের বন্ধুত্ব থেকে নেহালের সঙ্গে সাবিলার মধ্যে সম্পর্কটা একটা সময় প্রেমে রূপ নেয়। এক বছর চুটিয়ে প্রেম করার পর গেল বছরের অক্টোবরের ২৫ তারিখে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন তারা।

সাবিলা নূর ২০১৪ সাল থেকে মডেলিংয়ের মাধ্যমে শোবিজ জগতে প্রবেশ করেন। গ্রামীণফোন, প্রাণ ফিট, রবি ছাড়াও প্রায় ৪০টির মতো জনপ্রিয় বিজ্ঞাপনে তিনি কাজ করেছেন। তার অভিনীত জনপ্রিয় নাটকগুলোর মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য ইউটার্ন, শত ডানার প্রজাপতি, জল কলঙ্ক, পাষাণ ইজ ব্যাক, মন শুধু মন ছুঁয়েছে।

আইএন

ট্যাগ :

কালজয়ী গদ্যশিল্পী মীর মশাররফ হোসেনের ১৭৬ তম জন্মবার্ষিকী

কপি না করে নিউজ লিখা শিখুন!

শ্বশুরবাড়িতে ঈদের সালামি অনেক বেশি পেয়েছি: সাবিলা নূর

প্রকাশের সময় : ০২:৩৬:০৩ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৫ জুন ২০২০

বিয়ের পর এবারই প্রথম শ্বশুরবাড়িতে ঈদ পালন করলেন টিভি পর্দার জনপ্রিয় অভিনেত্রী সাবিলা নূর। এসএ টেলিভিশনে ব্রডকাস্ট ইঞ্জিনিয়ার নেহাল সুনন্দ তাহেরকে ভালোবেসে গেল বছরের শেষের দিকে বিয়ে করেন এ অভিনেত্রী।

 

দেশের করোনা পরিস্থিতিতে অনেকদিন ধরেই শ্বশুরবাড়িতে ঘরবন্দী সময় কাটাচ্ছেন তিনি। ঘরে থাকলেও সেখানে বেশ ভালো সময় কাটাচ্ছেন সাবিলা। পরিবারের সবার সঙ্গে এক আনন্দঘন মূহুর্ত পার করছেন।

নজরকাড়া অভিনয় দিয়ে লাখো দর্শকের মনে জায়গা নেয়া এ অভিনেত্রীর জন্মদিন আজ ২৭ মে, বুধবার। সেদিক থেকে এবারের জন্মদিনটাও তার জন্য স্পেশাল। ঈদুল ফিতরের সঙ্গে জন্মদিনটাও শ্বশুরবাড়িতেই কাটাচ্ছেন তিনি।

জন্মদিন পালন প্রসঙ্গে সাবিলা নূর বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, ‘বিয়ের পর শ্বশুরবাড়িতে এটা আমার প্রথম ঈদ ও প্রথম জন্মদিন। খুব ভালো ঈদ কাটিয়েছি। আজকে জন্মদিন কাটাচ্ছি। অনেক ভালো লাগছে। তবে কারোনার কারণে খুব একটা আনন্দ করা হয়নি ঈদে। সামনে তো আরো ঈদ আছে। ইনশাল্লাহ আগামীর ঈদগুলো আরও ভালো করে সেলিব্রেট করতে পারব। করোনার কারণে তো কোথাও বেড়াতে যেতে পারেনি।’

বিয়ের পর এটাই প্রথম ঈদ। নতুন পরিবারের সঙ্গে সময়টা কিভাবে কাটালেন, এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘আমি অনেকটা লাকি কারণ বাবার বাড়ি ও শ্বশুরবাড়ির ঈদ আমি আলাদা ভাবে ফিল করিনি। মনে হচ্ছে নিজের বাড়িতেই ঈদ করছি। আরেকটা ভালো দিক হচ্ছে ঈদের সালামি অনেক বেশি পেয়েছি এবার।’

 

জন্মদিনের উপহার হিসেবে কী পেয়েছেন এবার। সাবিলা বললেন, ‘জন্মদিনের সারপ্রাইজ দেওয়ার পরিকল্পনা করছে আমার বর। সারপ্রাইজ টা যে কি সেটা এখনও জানি না। তবে বাসাতেই থাকবো। বাসা থেকে বাইরে কোথাও যাব না।’

জন্মদিন কোনো মজার স্মৃতি মনে পড়ে? স্মৃতি হাতড়ে সাবিলা নূর বললেন, ‘আমি আসলে জন্মদিনটাকে খুব স্পেশালভাবে দেখতাম ছোটবেলা থেকেই। আব্বু আম্মু সবাই আমাকে নিয়ে সেলিব্রেট করত দিনটা। আমিও খুবই উপভোগ করতাম। জন্মদিনের পার্টি হত। জন্মদিনে আম্মু একবার বার-বি-কিউ কেক বানিয়ে দিয়েছিল। আব্বু আম্মু ভাই বোন সবাই মিলে অনেক মজা করতাম এই দিনে।

গতবার নেহাল আমার জন্মদিনে দারুন একটা সারপ্রাইজ দিয়েছিল। প্রত্যেকবারই আমার জন্মদিনটা অনেক ভালো যায়। সে দিক থেকে আমি অনেক লাকি।’

এখন পর্যন্ত জন্মদিনে পাওয়া সেরা গিফট কি? সাবিলা নূর বললেন, ‘এখন পর্যন্ত আমার জন্মদিনের সেরা গিফট হচ্ছে- গত বছর জন্মদিনে আমার স্কুল ফ্রেন্ডদের সঙ্গে দেখা হওয়া। সবাইকে নেহাল একত্রে করে একটা পার্টি অ্যারেঞ্জ করেছিল। এছাড়া যেইবার জন্মদিনের সময় আমেরিকায় ছিলাম, মনে হচ্ছিলো- চেনা পরিচিত মানুষ কম আছে এখানে। এবার হয়তো বড় পরিসরে জন্মদিনের আয়োজন করা হবে না। সেইবার আমার বোন তার বন্ধু-বান্ধবকে ডেকে বড় একটা জন্মদিনের আয়োজন করেছিল। প্রত্যেক জন্মদিনে এমন স্মরণীয় কিছু না কিছু আছে।’

সাবিলা নূর জানালেন, এবার ঈদে ‘ব্যাচেলার কোয়ারেন্টাইন’ নামে তার অভিনীত একটি নাটক প্রচার হয়েছে। বাসায় বসে শুটিং করেছিলেন নাটকটির। এছাড়া পুরনো কিছু নাটক প্রচার হয়েছে তার। লকডাউন শুরু হওয়ার আগে পরীক্ষা নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। এরপর শুরু হলো লকডাউন।

তিনি আরও বলেন, ‘ করোনার কারনে কি কি নাটক যাচ্ছে খুব একটা খবরও রাখিনি। এখন সুস্থ থাকা ও বেঁচে থাকাটা জরুরী। এই সমস্যা আমরা কবে কাটিয়ে উঠতে পারব জানি না।’

প্রসঙ্গত, তিন বছরের বন্ধুত্ব থেকে নেহালের সঙ্গে সাবিলার মধ্যে সম্পর্কটা একটা সময় প্রেমে রূপ নেয়। এক বছর চুটিয়ে প্রেম করার পর গেল বছরের অক্টোবরের ২৫ তারিখে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন তারা।

সাবিলা নূর ২০১৪ সাল থেকে মডেলিংয়ের মাধ্যমে শোবিজ জগতে প্রবেশ করেন। গ্রামীণফোন, প্রাণ ফিট, রবি ছাড়াও প্রায় ৪০টির মতো জনপ্রিয় বিজ্ঞাপনে তিনি কাজ করেছেন। তার অভিনীত জনপ্রিয় নাটকগুলোর মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য ইউটার্ন, শত ডানার প্রজাপতি, জল কলঙ্ক, পাষাণ ইজ ব্যাক, মন শুধু মন ছুঁয়েছে।

আইএন